Sunday, August 7, 2022

অচেনা একজন মানুষ এখন সুপারস্টার!

ছোটবেলা থেকেই সুপারস্টার হওয়ার স্বপ্ন ছিল যশের চোখে। আর তাই মাত্র ১২ বছর বয়সে বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়েছিলেন নায়ক হওয়ার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার জন্য। মাত্র ৩০০ রুপি নিয়েই কলিউডে পথচলা শুরু করেছিলেন যশ। অথচ আজ তারই সিনেমা বক্স অফিসে ৭৫০ কোটির ব্যবসা করছে।

এ ছাড়া সুপারস্টার যশ বর্তমানে রকি নামে সারা বিশ্বের পর্দা কাঁপাচ্ছেন । একই সঙ্গে আয় করে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকাও। একের পর এক ছবির অফারও রয়েছে তার ঝুলিতে। স্বপ্নের মান্নাত যেন ধরা দিলও এই অভিনেতার কাছে। বর্তমানে বেঙ্গালুরুর বিলাসবহুল সুদৃশ্য ডুপ্লেক্সে থাকছেন ইয়াশ। অথচ জীবনের শুরুর দিকট এতটা মসৃণ ছিল না তার। সোনার চামচ মুখে দিয়ে জন্মাননি তিনি। বরং কষ্ট করেই কেষ্ট পেয়েছেন!

নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মেছিলেন যশ। চোখে স্বপ্ন ছিল হিরো হওয়ার। আর সেই স্বপ্নকে ধাওয়া করেই বাড়ি ছেড়েছিলেন তিনি। সেই সময় তার পকেটে ছিল মাত্র ৩০০ রুপি। তখন অবশ্য তার নাম ছিল নবীন কুমার গৌঢ়া। বাবা ছিলেন বাসের কন্ডাকটর আর মা গৃহবধূ।

এ ছাড়া ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে কোনো সম্পর্কই ছিল না তার। আজ যে সাফল্য তিনি পেয়েছেন তা সম্পূর্ণ নিজ চেষ্টা ও পরিশ্রমের ফল। একাধিক কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছেন তিনি। চড়াই-উতরাইয়ের মুখে কখনো হার মানেননি। আর সেই কারণেই কন্নড় ইন্ডাস্ট্রিতে দাপিয়ে কাজ করার পর আজ প্যান ইন্ডিয়ান স্টার তিনি।

যশ সবসময়ই নিজের ওপর বিশ্বাস রেখেছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, “আমি সবসময়ই অভিনেতা হতে চাইতাম বললে ভুল বলা হয়। আমি সুপারস্টার হতে চাইতাম। কখনো ভাবিনি যে অভিনয় এতটা কঠিন কাজ। ছাত্রাবস্থা থেকেই শিক্ষকরা আমাকে ‘হিরো’ বলে ডাকতেন। এতে ভালো লাগত। আসলে তখন অনেক ছোট চরিত্রে অভিনয় করতাম। আর সেই কারণেই শিক্ষকরা বলতেন, সিনেমা কই?”

এদিকে একসময়ে কষ্ট করা যশের সম্পত্তির ভ্যালুয়েশন এখন ৩৮ কোটি রুপি। এক্ষেত্রে প্রভাসের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে তিনি। তবে প্রভাস প্রায় দ্বিগুণ সময় ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে আছেন। জানা গেছে, প্রতিটি ছবির জন্য দুই কোটি রুপি করে নেন দক্ষিণী এই তারকা। প্রতি মাসে তার ইনকাম গড়ে ৫০ লাখ রুপি। বার্ষিক আয় পাঁচ কোটির কাছাকাছি। সিনেমা ছাড়াও বিভিন্ন বিজ্ঞাপন এবং প্রোমোশনও করেন তিনি। সেখান থেকেও বড় অঙ্কের টাকা আয় করেন।

সূত্র: কইমই ডট কম

Latest news

00

Related news