Sunday, August 14, 2022

জয়াবর্ধনের চোখে টি-টোয়েন্টির ‘সেরা পাঁচ’ ক্রিকেটার

বর্তমান টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজের দৃষ্টিতে ‘স্বপ্নের একাদশে’ পাঁচ ক্রিকেটারের নাম প্রকাশ করেছেন মাহেলা জয়াবর্ধনে। তার এই তালিকায় সর্বাধিক দুইজন ক্রিকেটার আছেন পাকিস্তান থেকে টি-টোয়েন্টি সংস্করণে এখন স্বপ্নের একাদশ গড়তে হলে প্রথম যেই পাঁচ জন ক্রিকেটারকে অবশ্যই জয়াবর্ধনে দলে রাখবেন তারা হলেন, আফগানিস্তানের রশিদ খান, পাকিস্তানের শাহীন আফ্রিদি ও মোহাম্মদ রিজওয়ান, ভারতের জাসপ্রীত বুমরাহ ও ইংল্যান্ডের জস বাটলার। এছাড়া ক্রিস গেইলের অতীতকে স্মরণ করে জয়াবর্ধনে বলেন, সেই ৩০ বছর বয়সী গেইলও এই একাদশের দাবিদার ছিলেন।

রশিদ বর্তমানে আইসিসি বোলিং র‍্যাংকিংয়ে পঞ্চম স্থানে আছেন। রশিদের সম্পর্কে জয়াবর্ধনে বলেন, “আমার কাছে টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলেন বোলাররা এবং রশিদ এমন একজন বোলার যে ভালো ব্যাটিংও পারে। সে সাত কিংবা আটে ভালো ব্যাটার এবং পরিস্থিতির ওপর বিবেচনা করেও আপনি তাকে বিভিন্ন স্থানে ব্যবহার করতে পারবেন। সে পাওয়ারপ্লে, মধ্যের ওভারগুলোতেও বোলিং পারে। তাই রশিদ আমার প্রথম পছন্দ।”

বোলারদের ওপর জোর দেওয়া জয়াবর্ধনে দ্বিতীয় বোলার হিসেবে নিয়েছেন পাকিস্তানের শাহীনকে এবং ও তৃতীয় বোলার হিসেবে তার পছন্দ জাসপ্রীত বুমরাহ। বর্তমান টি-টোয়েন্টি বোলিং র‍্যাংকিংয়ে শাহীন ১০ম ও বুমরাহ ২৮তম স্থানে আছেন। শাহীনকে নিয়ে জয়াবর্ধনে বলেন, “তারপর আমি আরও দুইজন বোলারকে নিবো। প্রথমজন হলে, বাঁহাতি পেসার শাহীন। সে বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলেছিল। নতুন বলে দারুণ বোলিং করে ও সুইং করাতে পারে। সে উইকেটশিকারি বোলার। ডেথ ওভারেও ভালো বল করে। একজন আগ্রাসী বোলার।”

বুমরাহর সম্পর্কে জয়াবর্ধনে বলেন, “বুমরাহ এমন একজন বোলার যার প্রশংসা আমি সবসময়ই করে থা‌কি। সে যেকোনো পরিস্থিতিতে বোলিং করতে পারে এবং একজন উইকেটশিকারি বোলার। যখন আপনি ইনিংস শেষ করতে চান, তখন অপশন হিসেবে বুমরাহর চেয়ে ভালো আর নেই কেউ।”

ওপেনার হিসেবে জয়াবর্ধনের চোখে সেরা বাটলার। আইসিসি টি-টোয়েন্টি বোলিং র‍্যাংকিংয়ে ১৭তম স্থানে আছেন তিনি। জয়াবর্ধনে বলেন, “আমি জসকে দিয়ে ওপেন করাবো। সে খুব আক্রমণাত্মক ব্যাটার এবং পেস ও স্পিন ভালো খেলে। সে এই আইপিএলে এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের কঠিন কন্ডিশনেও বিশ্বকাপে দারুণ খেলেছিল।”

উইকেটরক্ষ হিসেবে রিজওয়ানকে বেছে নিয়েছেন জয়াবর্ধনে। এই সাবেক শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার বলেন, “পরের অপশনটি হলো উইকেটরক্ষক ব্যাটার এবং এখানে আমি রিজওয়ানকে নিবো। আমি জানি সে পাকিস্তানে ইনিংস উদ্বোধন করে তবে আমার মনে হয় সে মিডল অর্ডারেও খেলতে পারবে। সে স্পিন খুব ভালো খেলে এবং খুব ব্যস্ত ক্রিকেটার।”

এছাড়া গেইলের সোনালী সময়ের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, “আমি ৩০ বছর বয়সী ক্রিস গেইলকে বাটলারের সাথে ওপেনিংয়ে নিতাম, সেটি দারুণ হতো। ক্রিস এক জায়গায় দাঁড়িয়ে বাউন্ডারি মারত এবং দৌঁড়ে রান নেওয়ার কাজ জস করত।”

Latest news

00

Related news